১৯৪১ সালে তিনি জাপানী বিমান বাহিনীতে পাইলট হিসেবে নিযুক্তহন।ওই বছরের ডিসেম্বরে তিনি প্রশান্ত মহাসাগরীয় যুদ্ধে একটি মার্কিন ফাইটার শুটডাউনের মাধ্যমে নিজের প্রথম কিল রেকর্ড অর্জন করেন।এরপর ২য় বিশ্বযুদ্ধে তিনি আরাকান,রেঙ্গুন সহ বিভিন্ন জাপানী ঘাঁটিতে থেকে Ki-43 ফাইটার উড়িয়েছেন।

এই পর্যন্ত তার ৩৯টি অফিসিয়াল কিলরেকর্ড রয়েছে (মূলত অনঅফিসিয়াল ৫৩টি কিলরেকর্ড লিপিবদ্ধ রয়েছে)

বাংলাদেশের আকাশে তিনি ব্রিটিশ পাইলটদের জন্য ছিলেন এক আতঙ্ক…….নিচে বাংলাদেশের আকাশে তার কিল রেকর্ড গুলো দেওয়া হলো:

▶২৫ অক্টেবর,১৯৪২…….তিনি Ki-43 ফাইটার দিয়ে একটি ব্রিটিশ P-40 ফাইটারকে ভূপাতিত করেন (সম্ভাব্যত চট্টগ্রাম/কক্সবাজার এরিয়াতে) ১০ ডিসেম্বর ১৯৪২…….চট্টগ্রামের আকাশে আরো একটি P-40 ফাইটার ভূপাতিত করেন। ১৫ ডিসেম্বর ১৯৪২…..চট্টগ্রামে একটি ব্রিটিশ হারিক্যান ফাইটার শুটডাউন করেছিলেন বলে দাবি করেন।কিন্তু অনিশ্চয়তার কারনে তার কিল রেকর্ডে অন্তভুক্ত হয়নি। ১৪ জানুয়ারী ১৯৪৩…..বাংলাদেশের আকাশে ১টি ব্রিটিশ হারিক্যান ফাইটার ভূপাতিত করেন (তার১৪তম কিলরেকর্ড) ৩১ মার্চ ১৯৪৩……চট্টগ্রামের পতেঙ্গা এলাকায় ৩টি ব্রিটিশ Hurricane ফাইটার শুটডাউন করেন ৪ এপ্রিল ১৯৪৩……চট্টগ্রামের দোহাজারীতে Ki-43 ফাইটার দিয়ে আরো দুইটি ব্রিটিশ Hurricane ফাইটার ভূপাতিত করেন। ৪ মে ১৯৪৩…..তিনি Ki-43 “Fubuki” ফাইটার দিয়ে কক্সবাজারে একটি ব্রিটিশ Hurricane ফাইটার শুটডাউন করেন। ২২ মে & ২৯ মে,১৯৪৩……এই দুই দিনে তিনি ২টি ব্রিটিশ Hurricane ফাইটার এবং দুইটি (অজানা) ব্রিটিশ ফাইটার ভূপাতিত করেন।

সব মিলিয়ে তিনি বাংলাদেশের কক্সবাজার & চট্টগ্রামের আকাশে ১৪টি ব্রিটিশ ফাইটার জেট ডগফাইটের মাধ্যমে শুটডাউন করেন এবং বাংলার আকাশে আধিপত্য বিস্তার করতে সক্ষম হয়েছিলেন

২০০৫ সালে নিজ দেশ জাপানে তিনি মারা যান।

তিনি সত্যিকারের একজন ফ্লাইং ঈগল।

লিখেছেন:- Y.A Sinha

By BD News